যে কারণে তরুণদের চুল সাদা হয়ে যাই

যে কারণে তরুণদের চুল সাদা হয়ে যাই

সাদা চুল বার্ধক্যের লক্ষণ। তবে তরুণদেরও চুল সাদা হতে পারে। ঠিক কী কারনে এমনটা হয়, তা নির্দিষ্ট নয়। মূলতঃ চুলের মেলানিন উৎপাদন কমে যাওয়াকে দায়ী করা হয়। তবে মেলানিন কমে যাওয়ার পেছনে কারণ হিসেবে আছে জিনগত বৈশিষ্ট্য, ভিটামিন ঘাটতি, স্ট্রেস, থাইরয়েড সমস্যা, ধূমপান ইত্যাদি।

জিনগত বৈশিষ্ট্যঃ

জিনগত কারণে চুল সাদা হতে পারে। এটা অবশ্য পরিহার করা যায় না। এবং এটাও মানতে হবে, জিনগত কারণে যেসব পরিবর্তন হয়, সেসব স্থায়ী হয়। চুলের ক্ষেত্রেও একই কথা। তবে পূর্বেই যেমন বলা হয়েছে, চুল সাদা হওয়ার এটাই একমাত্র কারণ নয়।

ভিটামিন ঘাটতিঃ

চুল সাদা হওয়ার আরেকটি কারণ হতে পারে ভিটামিন ঘাটতি, বিশেষ করে যদি ভিটামিন বি১২ না থাকে। এক্ষেত্রে ভিটামিন বি১২ সাপ্লিমেন্ট ওষুধ খাওয়া বাঞ্ছণীয়।

থাইরয়েডঃ

থাইরয়েড গ্রন্থিতে কোনো সমস্যা থাকলে চুল সাদা হতে পারে (অতিমাত্রায় বেশি অথবা কম হরমোন তৈরি)।

স্ট্রেসঃ

তবে অকালেই চুল পাকতে পারে স্ট্রেসের কারণে। বলা হয় স্ট্রেসে থাকলে বা অস্বাস্থ্যকর বা তাড়াহুড়োর জীবনযাপন করলে চুল সাদা হতে পারে, যদিও চুল বিশেষজ্ঞবৃন্দ এ ব্যাপারে সবাই একমত নন। অবশ্য স্ট্রেস কমিয়ে স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন চুল সাদা প্রতিরোধে কার্যকর।

ধূমপানঃ

বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গিয়েছে ধূমপান এবং চুল পাকার মাঝে সম্পর্ক আছে। অনেকে বলে থাকেন চুল পাকার ক্ষেত্রে অতিমাত্রায় ধূমপায়ীরা অধূমপায়ীদের থেকে চার গুণ বেশি হুমকিতে থাকেন।

মানসিক চাপঃ

ইমোশনাল ট্রমা বা শক পেলেও চুল পাকতে পারে। অবশ্য এসব ক্ষেত্রে অল্প দিনেই সেরে উঠে চুল।

মনে রাখা দরকার সাদা চুল বৃদ্ধি কমাতে বিভিন্ন চিকিৎসা আছে। বাজারে অনেক ওষুধ পাওয়া যায়, বাসাতেও তৈরি করা যায়। সাদা চুল ঢাকতে বেশিরভাগ মানুষই চুল কলপ করায় অভ্যস্ত। তবে এসব ক্ষেত্রে ওষুধ ব্যবহারের চেয়ে প্রতিরোধই উত্তম। অতি অল্প পরিমাণ সাদা চুল থাকলে হাতে উঠিয়ে কাজ সারা যায়। ব্যথা করবে, তবে বিষয়টি নিরাপদ।

টিপসটি ভালো লাগলে Like দিন, টিপসটি সম্পর্কে কোন কিছু জানার থাকলে অবশই কমেন্ট করবেন এবং প্রতিদিন স্বাস্থ্য বিষয়ক টিপস পেতে (বিডি হেলথ টিপসের) এর সাথে থাকুন ।